ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

কেসি কলেজ ফুটবল টুর্নামেন্ট : টাইব্রেক শেষে খেলোয়াড়দের মুশি সাপুড়ের ড্যান্স

এলিস হক।।

ঝিনাইদহ সরকারি কেসি কলেজের আয়োজনে আন্তঃবিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামে স্নাতক পাস বিভাগ ভাগ্যক্রমে টাইব্রেকারে জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে উন্নীত হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টায় প্রতিযোগিতার চতুর্থ দিনের প্রথম খেলায়  পাস এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ নির্ধারিত সময় গোলশূন্য ড্র হলে টাইব্রেকার কিক গড়ায়। সেখানে পাস বিভাগ ৪-৩ গোলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগকে হারিয়ে এই কৃতিত্ব দেখায়।

২০১১ সালে শুরু হয় আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা। আর থামছে কই? সাতটা বছর পার করলো। তবুও সাফল্যে সাফল্যে তাদের সমীহ করতে হবে যে বড়!! বলতে গেলে এই স্থানীয় স্টেডিয়াম মাঠে দৃষ্টি কেড়েছেন উভয় দলের খেলোয়াড়দের ক্রীড়া মুন্সিয়ানার ছাপ। কিন্তু দলই গোলমুখ না খোলায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা একটু হতাশ হয়েছেন। মুষড়ে পড়েন কেউ কেউ। তারা যথেষ্ট আস্থার সাথে পরিচয় দিয়েছেন আক্রমণ রচনায়। ভালো খেলেছেনও। বেশ কয়েকটি গোল করার সুযোগ এসেছিল। সহজ সুযোগ বলতে গেলে দুই দলের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়েরা হাতছাড়া করেন।

বিশেষ করে  পাসের সেন্টার ফরোয়ার্ড ১২ নম্বর জার্সি জুয়েল, স্ট্রাইকার ১০ নম্বর জার্সি রাজন মিয়া ও ফরোয়ার্ড ৯ নম্বর বদলি খেলোয়াড় মিন্টু, রক্ষণভাগে ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের ও ৫ নম্বর স্টপার সানজিৎ এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মাঝমাঠের দুইজন ৮ নম্বর জার্সি শাকিল, ৬ নম্বর জার্সি হৃদয় আহমেদ, রক্ষণভাগের ৫ নম্বর জার্সি আকিব ও ৩ নম্বর জার্সি গৌরাঙ্গ বিশ্বাস প্রমুখ মাঠে ক্রীড়া নৈপূণ্যতার পরিচয় দেন। শারদীয় পূজালগ্নে প্রচন্ড গরমে খেলোয়াড়েরা বেশ হাঁপিয়ে পড়েন। মাঠে রীতিমতো পানি খাওয়ার উৎসবে পরিণত হয়।
¯

কেসি কলেজ ফুটবল টুর্নামেন্ট : টাইব্রেক শেষেখেলোয়াড়দের মুশি সাপুড়ের ড্যান্স

ঝিনাইদহ সরকারি কেসি কলেজের আয়োজনে আন্তঃবিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামে স্নাতক পাস বিভাগ ভাগ্যক্রমে টাইব্রেকারে জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে উন্নীত হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টায় প্রতিযোগিতার চতুর্থ দিনের প্রথম খেলায়  পাস এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ নির্ধারিত সময় গোলশূন্য ড্র হলে টাইব্রেকার কিক গড়ায়। সেখানে পাস বিভাগ ৪-৩ গোলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগকে হারিয়ে এই কৃতিত্ব দেখায়।

২০১১ সালে শুরু হয় আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা। আর থামছে কই? সাতটা বছর পার করলো। তবুও সাফল্যে সাফল্যে তাদের সমীহ করতে হবে যে বড়!! বলতে গেলে এই স্থানীয় স্টেডিয়াম মাঠে দৃষ্টি কেড়েছেন উভয় দলের খেলোয়াড়দের ক্রীড়া মুন্সিয়ানার ছাপ। কিন্তু দলই গোলমুখ না খোলায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা একটু হতাশ হয়েছেন। মুষড়ে পড়েন কেউ কেউ। তারা যথেষ্ট আস্থার সাথে পরিচয় দিয়েছেন আক্রমণ রচনায়। ভালো খেলেছেনও। বেশ কয়েকটি গোল করার সুযোগ এসেছিল। সহজ সুযোগ বলতে গেলে দুই দলের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়েরা হাতছাড়া করেন।

বিশেষ করে  পাসের সেন্টার ফরোয়ার্ড ১২ নম্বর জার্সি জুয়েল, স্ট্রাইকার ১০ নম্বর জার্সি রাজন মিয়া ও ফরোয়ার্ড ৯ নম্বর বদলি খেলোয়াড় মিন্টু, রক্ষণভাগে ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের ও ৫ নম্বর স্টপার সানজিৎ এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মাঝমাঠের দুইজন ৮ নম্বর জার্সি শাকিল, ৬ নম্বর জার্সি হৃদয় আহমেদ, রক্ষণভাগের ৫ নম্বর জার্সি আকিব ও ৩ নম্বর জার্সি গৌরাঙ্গ বিশ্বাস প্রমুখ মাঠে ক্রীড়া নৈপূণ্যতার পরিচয় দেন। শারদীয় পূজালগ্নে প্রচন্ড গরমে খেলোয়াড়েরা বেশ হাঁপিয়ে পড়েন। মাঠে রীতিমতো পানি খাওয়ার উৎসবে পরিণত হয়।
¯œাতক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান উভয়ই দফায় দফায় বল নিয়ে এ্যাটাকিং থার্ডে খেলতে গেছেন…যতবার গেছেন তারা…ততবার উভয়পক্ষের গোলকিপার রাজু ও গোলকিপার বিপ্লব দারুণ প্রশ্নাতীত দক্ষতার পরিচয় দেন। তারা বেশ কয়েকবার নিশ্চিত গোল খাওয়া হতে রক্ষা করেন।

টাইব্রেকার কিকে টসে জয়লাভ করে রাষ্ট্রবিজ্ঞান দল। প্রথমেই পেনাল্টি কিক করতে যান ৫ নম্বর জার্সি আকিব। তিনি সবাইকে হতাশ করে বল যখন বাইরে মারেন (০-০)। এরপর আসেন ¯œাতক দলের ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের। সোজা নেটে প্রবেশ করিয়ে দেন গোলকিপার বিপ্লবকে পরাস্ত করেন (০-১)। দ্বিতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১১ নম্বর মুকুল। বল মারেন। সাইড পোস্টে লাগে। নট গোল (০-১)। ¯œাতকের ১১ নম্বর মেহেদী বল মারের বারের উপর দিয়ে (০-১)।এই তো বুঝি হারার শংকা জাগে যেকোনো দলেরই। তৃতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ৮ নম্বর শাকিল শট মারেন..গোলকিপার রাজু পরাস্ত (১-১)। সমানে সমান। এবার পালা ¯œাতকের। ১২ নম্বর জুয়েল। বারের কোনায় বল আশ্রয় (২-১)। আসেন ১২ নম্বর জার্সি রিফাত। নিখুঁত শট করেন (২-২)। ফের স্কোর লেভেল।

চতুর্থ কিকে  ১০ নম্বর রাজন আসেন। বল মাঝখানে আর গোলকিপার বিপ্লব বামে ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং সহজ গোল (৩-২)। এই কিকেই জয়ের পাল্লাটা নির্ধারিত হয়ে যায় পক্ষে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের চোখে অন্ধকার।
যতবার মারবে ততবার স্নাতকের পক্ষে যাবে…এই অবস্থার মধ্যে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১৩ নম্বর হযরত কোনো চিন্তা না করে পোস্টে বল মেরেই গোলে পরিণত করান (৩-৩)। জয়ের নিক্তি কিন্তু কোর্টে। ১৪ নম্বর আশরাফুলের শেষ কিক। দুরু দুরু বক্ষমান অবস্থা। গোল দিয়েই ভোঁ দৌড়..সাথে সাথে

কেসি কলেজ ফুটবল টুর্নামেন্ট : টাইব্রেক শেষেখেলোয়াড়দের মুশি সাপুড়ের ড্যান্স

ঝিনাইদহ সরকারি কেসি কলেজের আয়োজনে আন্তঃবিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামে স্নাতক পাস বিভাগ ভাগ্যক্রমে টাইব্রেকারে জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে উন্নীত হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টায় প্রতিযোগিতার চতুর্থ দিনের প্রথম খেলায়  পাস এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ নির্ধারিত সময় গোলশূন্য ড্র হলে টাইব্রেকার কিক গড়ায়। সেখানে পাস বিভাগ ৪-৩ গোলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগকে হারিয়ে এই কৃতিত্ব দেখায়।

২০১১ সালে শুরু হয় আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা। আর থামছে কই? সাতটা বছর পার করলো। তবুও সাফল্যে সাফল্যে তাদের সমীহ করতে হবে যে বড়!! বলতে গেলে এই স্থানীয় স্টেডিয়াম মাঠে দৃষ্টি কেড়েছেন উভয় দলের খেলোয়াড়দের ক্রীড়া মুন্সিয়ানার ছাপ। কিন্তু দলই গোলমুখ না খোলায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা একটু হতাশ হয়েছেন। মুষড়ে পড়েন কেউ কেউ। তারা যথেষ্ট আস্থার সাথে পরিচয় দিয়েছেন আক্রমণ রচনায়। ভালো খেলেছেনও। বেশ কয়েকটি গোল করার সুযোগ এসেছিল। সহজ সুযোগ বলতে গেলে দুই দলের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়েরা হাতছাড়া করেন।

বিশেষ করে  পাসের সেন্টার ফরোয়ার্ড ১২ নম্বর জার্সি জুয়েল, স্ট্রাইকার ১০ নম্বর জার্সি রাজন মিয়া ও ফরোয়ার্ড ৯ নম্বর বদলি খেলোয়াড় মিন্টু, রক্ষণভাগে ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের ও ৫ নম্বর স্টপার সানজিৎ এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মাঝমাঠের দুইজন ৮ নম্বর জার্সি শাকিল, ৬ নম্বর জার্সি হৃদয় আহমেদ, রক্ষণভাগের ৫ নম্বর জার্সি আকিব ও ৩ নম্বর জার্সি গৌরাঙ্গ বিশ্বাস প্রমুখ মাঠে ক্রীড়া নৈপূণ্যতার পরিচয় দেন। শারদীয় পূজালগ্নে প্রচন্ড গরমে খেলোয়াড়েরা বেশ হাঁপিয়ে পড়েন। মাঠে রীতিমতো পানি খাওয়ার উৎসবে পরিণত হয়।
¯œাতক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান উভয়ই দফায় দফায় বল নিয়ে এ্যাটাকিং থার্ডে খেলতে গেছেন…যতবার গেছেন তারা…ততবার উভয়পক্ষের গোলকিপার রাজু ও গোলকিপার বিপ্লব দারুণ প্রশ্নাতীত দক্ষতার পরিচয় দেন। তারা বেশ কয়েকবার নিশ্চিত গোল খাওয়া হতে রক্ষা করেন।

টাইব্রেকার কিকে টসে জয়লাভ করে রাষ্ট্রবিজ্ঞান দল। প্রথমেই পেনাল্টি কিক করতে যান ৫ নম্বর জার্সি আকিব। তিনি সবাইকে হতাশ করে বল যখন বাইরে মারেন (০-০)। এরপর আসেন ¯œাতক দলের ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের। সোজা নেটে প্রবেশ করিয়ে দেন গোলকিপার বিপ্লবকে পরাস্ত করেন (০-১)। দ্বিতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১১ নম্বর মুকুল। বল মারেন। সাইড পোস্টে লাগে। নট গোল (০-১)। ¯œাতকের ১১ নম্বর মেহেদী বল মারের বারের উপর দিয়ে (০-১)।এই তো বুঝি হারার শংকা জাগে যেকোনো দলেরই। তৃতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ৮ নম্বর শাকিল শট মারেন..গোলকিপার রাজু পরাস্ত (১-১)। সমানে সমান। এবার পালা ¯œাতকের। ১২ নম্বর জুয়েল। বারের কোনায় বল আশ্রয় (২-১)। আসেন ১২ নম্বর জার্সি রিফাত। নিখুঁত শট করেন (২-২)। ফের স্কোর লেভেল।

চতুর্থ কিকে  ১০ নম্বর রাজন আসেন। বল মাঝখানে আর গোলকিপার বিপ্লব বামে ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং সহজ গোল (৩-২)। এই কিকেই জয়ের পাল্লাটা নির্ধারিত হয়ে যায় পক্ষে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের চোখে অন্ধকার।
যতবার মারবে ততবার স্নাতকের পক্ষে যাবে…এই অবস্থার মধ্যে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১৩ নম্বর হযরত কোনো চিন্তা না করে পোস্টে বল মেরেই গোলে পরিণত করান (৩-৩)। জয়ের নিক্তি কিন্তু কোর্টে। ১৪ নম্বর আশরাফুলের শেষ কিক। দুরু দুরু বক্ষমান অবস্থা। গোল দিয়েই ভোঁ দৌড়..সাথে সাথে ¯œাতক পাস বিভাগের খেলোয়াড়েরা মুশি সাপুড়ের ব্রেক ড্যান্স ধরিয়ে দেন এবং একে অন্যের সাথে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।
স্নাতক (পাশ) বিভাগ : গোলকিপার রাজু ০০, অভিজিৎ ৪ (জুবায়ের ৩), সানজিৎ ৫, রাসেল ৭, রাজন মিয়া ১০, মেহেদী হাসান ১১ (অধিনায়ক), জুয়েল ১২, হারুন ১৩, আশরাফুল ১৪, আশরাফ ১৫ ও রসুল ১৬।
রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ : গোলকিপার বিপ্লব ১, আশিক শেখ ২, গৌরাঙ্গ বিশ্বাস ৩, আবদুল্লাহ মারুফ ৪, আকিব ৫, হৃদয় আহমেদ ৬, শাকিল ৮, আরিফুজ্জামান ৯ (অধিনায়ক) (আলামিন ৮), মিনারুল ১০, মুকুল ১১ ও হযরত ১৩।
রেফারি : শাহ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। সহকারি রেফারি : রবিউল ইসলাম ও জামাল হোসেন। ৪র্থ সহকারি রেফারি : শাহানুর ইসলাম সাগর।

পাস বিভাগের খেলোয়াড়েরা মুশি সাপুড়ের ব্রেক ড্যান্স ধরিয়ে দেন এবং একে অন্যের সাথে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।
স্নাতক (পাশ) বিভাগ : গোলকিপার রাজু ০০, অভিজিৎ ৪ (জুবায়ের ৩), সানজিৎ ৫, রাসেল ৭, রাজন মিয়া ১০, মেহেদী হাসান ১১ (অধিনায়ক), জুয়েল ১২, হারুন ১৩, আশরাফুল ১৪, আশরাফ ১৫ ও রসুল ১৬।
রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ : গোলকিপার বিপ্লব ১, আশিক শেখ ২, গৌরাঙ্গ বিশ্বাস ৩, আবদুল্লাহ মারুফ ৪, আকিব ৫, হৃদয় আহমেদ ৬, শাকিল ৮, আরিফুজ্জামান ৯ (অধিনায়ক) (আলামিন ৮), মিনারুল ১০, মুকুল ১১ ও হযরত ১৩।
রেফারি : শাহ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। সহকারি রেফারি : রবিউল ইসলাম ও জামাল হোসেন। ৪র্থ সহকারি রেফারি : শাহানুর ইসলাম সাগর।

ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান উভয়ই দফায় দফায় বল নিয়ে এ্যাটাকিং থার্ডে খেলতে গেছেন…যতবার গেছেন তারা…ততবার উভয়পক্ষের গোলকিপার রাজু ও গোলকিপার বিপ্লব দারুণ প্রশ্নাতীত দক্ষতার পরিচয় দেন। তারা বেশ কয়েকবার নিশ্চিত গোল খাওয়া হতে রক্ষা করেন।

টাইব্রেকার কিকে টসে জয়লাভ করে রাষ্ট্রবিজ্ঞান দল। প্রথমেই পেনাল্টি কিক করতে যান ৫ নম্বর জার্সি আকিব। তিনি সবাইকে হতাশ করে বল যখন বাইরে মারেন (০-০)। এরপর আসেন ¯œাতক দলের ৩ নম্বর জার্সি জুবায়ের। সোজা নেটে প্রবেশ করিয়ে দেন গোলকিপার বিপ্লবকে পরাস্ত করেন (০-১)। দ্বিতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১১ নম্বর মুকুল। বল মারেন। সাইড পোস্টে লাগে। নট গোল (০-১)। ¯œাতকের ১১ নম্বর মেহেদী বল মারের বারের উপর দিয়ে (০-১)।এই তো বুঝি হারার শংকা জাগে যেকোনো দলেরই। তৃতীয় কিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ৮ নম্বর শাকিল শট মারেন..গোলকিপার রাজু পরাস্ত (১-১)। সমানে সমান। এবার পালা ¯œাতকের। ১২ নম্বর জুয়েল। বারের কোনায় বল আশ্রয় (২-১)। আসেন ১২ নম্বর জার্সি রিফাত। নিখুঁত শট করেন (২-২)। ফের স্কোর লেভেল।

চতুর্থ কিকে  ১০ নম্বর রাজন আসেন। বল মাঝখানে আর গোলকিপার বিপ্লব বামে ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং সহজ গোল (৩-২)। এই কিকেই জয়ের পাল্লাটা নির্ধারিত হয়ে যায় পক্ষে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের চোখে অন্ধকার।
যতবার মারবে ততবার স্নাতকের পক্ষে যাবে…এই অবস্থার মধ্যে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ১৩ নম্বর হযরত কোনো চিন্তা না করে পোস্টে বল মেরেই গোলে পরিণত করান (৩-৩)। জয়ের নিক্তি কিন্তু কোর্টে। ১৪ নম্বর আশরাফুলের শেষ কিক। দুরু দুরু বক্ষমান অবস্থা। গোল দিয়েই ভোঁ দৌড়..সাথে সাথে ¯œাতক পাস বিভাগের খেলোয়াড়েরা মুশি সাপুড়ের ব্রেক ড্যান্স ধরিয়ে দেন এবং একে অন্যের সাথে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।
স্নাতক (পাশ) বিভাগ : গোলকিপার রাজু ০০, অভিজিৎ ৪ (জুবায়ের ৩), সানজিৎ ৫, রাসেল ৭, রাজন মিয়া ১০, মেহেদী হাসান ১১ (অধিনায়ক), জুয়েল ১২, হারুন ১৩, আশরাফুল ১৪, আশরাফ ১৫ ও রসুল ১৬।
রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ : গোলকিপার বিপ্লব ১, আশিক শেখ ২, গৌরাঙ্গ বিশ্বাস ৩, আবদুল্লাহ মারুফ ৪, আকিব ৫, হৃদয় আহমেদ ৬, শাকিল ৮, আরিফুজ্জামান ৯ (অধিনায়ক) (আলামিন ৮), মিনারুল ১০, মুকুল ১১ ও হযরত ১৩।
রেফারি : শাহ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। সহকারি রেফারি : রবিউল ইসলাম ও জামাল হোসেন। ৪র্থ সহকারি রেফারি : শাহানুর ইসলাম সাগর।

Facebook Comments


শিরোনাম
২৬ জানুয়ারি নয়, মাধ্যমিক পর্যায়ে ‘স্টুডেন্ট কেবিনেট’ নির্বাচন মার্চে এমপিওভূক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের দশ শতাংশ চাঁদার আদেশ জারি এক মাস সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে: শিক্ষামন্ত্রী মোংলা সুন্দরবন থেকে পৃথক অভিযানে হরিণের মাসংসহ ট্রালার জব্দ পাবনা সুগার মিলের ট্রাক্টরের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঈশ্বরদীতে শিশুর মৃত্যু! ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ব্যাংক এশিয়ার নতুন শাখা উদ্বোধন  মাগুরা শ্রীপুর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ডজন ছাড়িয়ে! মোংলা ইপিজেডে পাথর চাপায়  শ্রমিকের মৃত্যু একজন ক্ষুদে কিশোর সাংবাদিক বনাম সমাজ সেবক! নিয়ামতপুরে ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তা নির্মান, ২৪টি পরিবারে স্বস্তি ডাকাত-চোরের নিরাপদ বিচরণ নওগাঁর পোরশায় ‘ক্রীড়াই শক্তি, ক্রীড়াই বল’…ওয়াজির আলী স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া ১৫৩ রানে জিতেছে মহেশপুর গভর্ণমেন্ট হাইস্কুল   হলি আর্টিজানে হামলার অর্থ-অস্ত্র আসে ভারত থেকে: র‍্যাব কৃষ্ণ সাগরে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্রবাহী ডেস্ট্রয়ার: নজর রাখছে রাশিয়া নৈতিক আদর্শ চর্চা ও জনকল্যাণে ছাত্রসেনা নিবেদিত: মুহাম্মদ শফিউল আলম সাকিব জামাল’র কবিতা এমপিওভূক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের বাড়ি ভাড়া নিয়ে এ.এম.এম.মুস্তাফিজুর রহমান’র কবিতা মিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার পদপ্রার্থী এ্যাড. আব্দুল হালিমের পক্ষে মটর সাইকেল শোভাযাত্রা মনোহরগঞ্জ উপজেলা শারীরিক শিক্ষা শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন কোটচাঁদপুরে ট্রেনের সামনে ঝাপ দিয়ে এক বৃদ্ধের আত্বহনন অবশেষে কাস্টম হাউস মোংলায় আসছে, রফতানি আমদানির হবে তরান্বিত  নিরীহ কোন লোক হয়রানি হবে না: ওসি মিজানুর রহমান খান আসামীদের ভয়ে বাদী গ্রাম ছাড়া হত্যার হুমকী ঝিনাইদহে সাড়ে ১৭ কোটি টাকার রাস্তা নির্মানে দুর্নীতি, কাজ বন্ধ করলো জনগণ
© All rights reserved © 2017 Onnodristy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com