ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

৭ ই নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা ও দেশপ্রেমিক সেনা হত্যা দিবস    

প্রদীপ কুমার দেবনাথ, নাসিরনগর ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) ।।    

ইতিহাসের এক কলঙ্কিত দিন ৭ই নভেম্বর। যদিও দিনটিকে কোনো কোনো রাজনৈতিক দল জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস বলে থাকে,আবার কোনো কোনো রাজনৈতিক দল দিনটিকে সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান বলে থাকে,বঙ্গবন্ধুর আর্দশ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী  শক্তি দিনটিকে মুক্তিযোদ্ধা ও সৈনিক হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে।

দেশবিরোধী বা পাকিস্তানপন্থিরা ছাড়া সমগ্র দেশবাসী ৭ই নভেম্বরকে মুক্তিযোদ্ধা ও সৈনিক হত্যা  দিবস হিসেবেই মনে করে।  এদিন পাকিস্তানি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলি ভুট্টোর অনুসারী একজন সামরিক অফিসার ক্ষমতা কুক্ষিগত অকুতোভয় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরোত্তমসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা ও লাল-সবুজের পতাকা উপহার দানকারী সৈনিক হত্যার মাধ্যমে। তিনি ক্ষমতা দখল করেই ভুট্টোর দাবি মোতাবেক প্রায় বিশবার সেনা অভ্যুত্থানের নামে অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা ও দেশপ্রেমিক   সৈনিক হত্যা করে যারা প্রায় সবাই বঙ্গবন্ধুর অনুসারী ছিলো। রক্তপিপাসু ঐ সেনানায়কের পরিকল্পিত এ হত্যাকাণ্ডগুলো মূলত ইচ্ছাকৃত ছিল।  এদেশকে মুক্তিযোদ্ধা শূন্য করে পাকিস্তানি তাবেদার রাষ্ট্র বানানোর মানসেই তিনি এসব করেছিলেন।

আমাদের বহু ত্যাগ-তিতিক্ষা, তাজা প্রাণ ও ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত প্রিয় ও পবিত্র এ মাটি পাকিস্তানি হায়েনা মুক্ত হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৬ ই ডিসেম্বর। ৯৩ হাজার সৈন্যকে নিয়ে বাধ্য হয়েই জীবন নিয়ে ফিরতে পেরেছিল রক্ত পিপাসুরা। স্বাধীন ও সার্বভৌম এ শিশু রাষ্ট্রটিকে বিশ্বের বহু দেশ স্বাধীন স্বীকৃতি দিলেও পাকিস্তান সরকার স্বীকৃতি দান না করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দিতে অনুরোধ করে ও নিজেরা রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বাধীন বাংলাদেশকে পূর্বপাকিস্তান নামে অভিহিত করে। এদেশের স্বাধীনতা বিরোধী চক্রকে যারা মুক্তিযোদ্ধার নাম করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি এজেন্ট হিসেবে কাজ করেছে এবং যাতে এদেশটি স্বাধীন হতে না পারে ।

এই চক্র অবশ্য মুক্তিযুদ্ধ চলাকালেও মুজিবনগর সরকারে অবস্থান করে স্বাধীনতা বিরোধী কার্যক্রম চালিয়েছে। এরা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পাকিস্তানিদের অনুচর হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। স্বাধীনতার পর এই মোস্তাক-জিয়া চক্রই মুজিব সরকারকে উত্খাত করে স্বাধীন বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তানের অঙ্গ রাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠায় অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়। তারা সরকারের সামরিক বেসামরিক বিভাগে মুজিব সরকার বিরোধী ব্যক্তিদের সংঘবদ্ধ করে। বিশেষ করে  জিয়া পাকিস্তান ফেরত সেনাবাহিনীর লোকজনদের নিয়ে গোপনে গোপনে সরকার বিরোধী  শিবির তৈরি করতে থাকে। এই শিবিরের লোকজনরাই ১৯৭৫ সালের  ১৫ই আগষ্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বেঈমান বিশ্বাসঘাতক খন্দকার মোস্তাককে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ করে। মোস্তাক রাষ্ট্রপতি হলেও দেশ পরিচালনার মূল দায়িত্ব পালন করে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী মেজররা। মোস্তাকের নেতৃত্বে তারা মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনাকে ধূলিসাত্ করে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরে যেতে থাকে। মোস্তাক-জিয়া চক্রের এই দুষ্কর্মের বিরুদ্ধে খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীরা সংগঠিত হয়। তারা মুজিব হত্যার প্রতিবাদ এবং সেনাবাহিনীর চেইন অব কমান্ড ফিরিয়ে আনার জন্য অগ্রসর হয়।

এ লক্ষ্যে তারা ১৯৭৫ সালে ৩রা নভেম্বর সামরিক অভ্যুত্থান ঘটান। তারা জিয়াকে গৃহবন্দী করে এবং খন্দকার মোস্তাককে রাষ্ট্রপতি থেকে বিতাড়িত করেন। এসময় সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরোত্তম আর রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম। বিনা রক্তপাতে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে দেশের আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়।

মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফের ঐতিহাসিক পরিবর্তনকে মেনে নিতে পারেনি মোস্তাক-জিয়া চক্র। তারা গোপনে গোপনে খালেদ মোশাররফের বিরুদ্ধে সংগঠিত হতে থাকে । তারা জিয়াকে বাসা থেকে  মুক্ত করে নিয়ে আসে। উল্লেখ্য, জিয়াকে  ৩ নভেম্বর  গৃহবন্দী করা হয়। বন্দী করে বাসার সমস্ত ফোনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিলেও একটি লাইন বিচ্ছিন্ন করেনি। উক্ত ফোনে জিয়া কর্ণেল তাহেরসহ অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। জিয়ার অনুরোধ পেয়ে তাহের তাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেন তার বিপ্লবী সংস্থা নিয়ে। মোস্তাক-জিয়া ও তাহের চক্র ৬ই নভেম্বর মধ্যরাতে ক্যান্টনমেন্টে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করে। এসময় তারা স্লোগান দেয়—সিপাহী সিপাহী ভাই ভাই, সুবেদারের উপর অফিসার নাই, সিপাহী সিপাহী ভাই ভাই, অফিসারের কল্লা চাই,বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, মেজর জিয়া জিন্দাবাদ,খন্দকার মোস্তাক জিন্দাবাদ, নারায়ে  তকবির আল্লাহু আকবার। তারা স্লোগান এবং গুলি করতে করতে  বঙ্গভবনের দিকে অগ্রসর হয়।

খারাপ অবস্থা অবলোকন করে মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ হায়দার ও হুদাকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গভবন থেকে সরে শেরেবাংলা নগরে দশম বেঙ্গলে আসার চেষ্টা করেন। আসার পথে তার গাড়ি নষ্ট হয়। তখন তিনি ফোন করে দশম বেঙ্গলে কমান্ডিং অফিসার লেঃ কর্ণেল নওয়াজেশ এর কাছ থেকে নিরাপত্তার আশ্বাস পান। নিরাপত্তার আশ্বাস পেয়ে অনেক কষ্ট করে দশম বেঙ্গলে পৌঁছেন মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ। সেখানে তিনি বিশ্রাম নিতে থাকেন। সেখানে গিয়ে উপস্থিত হয় একদল উচ্ছৃঙ্খল সৈনিক।

তাদের সঙ্গে যোগ দেয় দশম বেঙ্গলের কিছু সৈনিক। এই উচ্ছৃঙ্খল সৈনিকদের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন মেজর আসাদ ও জলিল। মেজর আসাদ ও জলিলের সঙ্গে  জিয়া কথা বলেন। জিয়ার সঙ্গে কথা বলার পরই আসাদ ও জলিল খালেদ মোশাররফকে এবং হায়দার ও হুদাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ঘাতকরা  খালেদ মোশাররফকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি। অনেক ঘাতকেরা আরো অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধা সেনাকর্মকর্তার ওপর আক্রমণ চালায় এবং বহু সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসীদের কাছে দিনটি একটি কলংকিত দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে বা থাকবে। যেহেতু জিয়া হত্যার মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে এবং ক্ষমতায় বসেও মুক্তিযোদ্ধাদের নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা চালায়। সেহেতু দিনটিকে সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস হিসেবে জাতির সামনে তুলে ধরা উচিত

Facebook Comments


Leave a Reply

শিরোনাম
জানেন কি মিশরে পিয়াজ মাটির নীচে নয় গাছের ডগায় হয়? এম‌পিও নী‌তিমালা ২০১৮ এর যে বিষয়গুলো সং‌শোধন করা জরুরী কমলনগরে বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকার অনশন মুজিব বর্ষেই এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের জাতীয়করণের  স্বপ্ন পূরণ কুষ্টিয়ায় লবনের গুজব: ব্যবসায়ীদের লাখ টাকা জরিমানা মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে রাবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, সাত দিন পেঁয়াজ বর্জনের আহবান নওগাঁয় গুজব ছড়িয়ে মহূর্তের মধ্যে চড়া মূল্যে লবন বিক্রির হিরিক ৩ দোকানীর ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা দুদকের হস্তক্ষেপ- লক্ষ্মীপুরে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে নেয়া বাড়তি টাকা ফেরত সংবাদপত্র সমাজের দর্পন আর সাংবাদিক জাতীর বিবেক : সহকারী পুলিশ সুপার বিনয় কুমার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় লবণ গুজব, শাস্তি জরিমানা লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজব প্রতিরোধে চান্দিনার উপজেলা প্রশাসনের অভিযান, জরিমানা লক্ষ্মীপুরে লবনের দাম নিয়ে চলছে ক্রেতাদের কাড়াকাড়ি, মন্ত্রণালয় বলছে গুজব রাবির হলে বিশুদ্ধ পানির প্ল্যান্ট চায় শিক্ষার্থীরা রাঙ্গুনিয়ায় পবিত্র ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী(দ.) উদযাপন উপলক্ষে  বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী সভা অনুষ্ঠিত আ’লীগকে আন্দোলনের হুমকি দিয়ে লাভ নেই : হানিফ ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়ায় পেঁয়াজের সাথে সাথে সবজির দাম আকাশ ছোঁয়া নওগাঁয় ৩,৫২০ হেক্টর জমি থেকে ৩৪ হাজার ৮শ ৮৪ মেট্রিকটন পিঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন মাগুরা মহম্মদপুরে বিদ্যুৎ স্পর্শে গৃহবধুর মৃত্যু কমলনগরে পিইসি পরীক্ষা দিচ্ছেন মাধ্যমিকে পড়া শিক্ষার্থীরা ঝিনাইদহে কৃষক দলের মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত  নিজের ঘর বুঝে পেল ইজিবাইকে বাবার সঙ্গে শৈশব কাটানো জান্নাতুল মাওয়া লক্ষ্মীপুরের হাজিরপাড়ায় ডাচ্ বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের শাখা উদ্বোধন সড়ক-মহা-সড়ক এখন রেজিঃ বিহীন ৩ চাকার বাহন ইজি-বাইক ও অটো চার্জারের দখলে নওগাঁয় নওগাঁর ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী মানুষ সংসদীয় কমিটির কাছে নিপীড়ন ও বৈষম্যের চিত্র তুলে ধরলেন খুলনায় শপথ নিলেন নবনির্বাচিত  চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানগণ

© All rights reserved © 2017 onnodristy.com

Theme Download From ThemesBazar.Com