ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

৭ ই নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা ও দেশপ্রেমিক সেনা হত্যা দিবস    

প্রদীপ কুমার দেবনাথ, নাসিরনগর ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) ।।    

ইতিহাসের এক কলঙ্কিত দিন ৭ই নভেম্বর। যদিও দিনটিকে কোনো কোনো রাজনৈতিক দল জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস বলে থাকে,আবার কোনো কোনো রাজনৈতিক দল দিনটিকে সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান বলে থাকে,বঙ্গবন্ধুর আর্দশ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী  শক্তি দিনটিকে মুক্তিযোদ্ধা ও সৈনিক হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে।

দেশবিরোধী বা পাকিস্তানপন্থিরা ছাড়া সমগ্র দেশবাসী ৭ই নভেম্বরকে মুক্তিযোদ্ধা ও সৈনিক হত্যা  দিবস হিসেবেই মনে করে।  এদিন পাকিস্তানি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলি ভুট্টোর অনুসারী একজন সামরিক অফিসার ক্ষমতা কুক্ষিগত অকুতোভয় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরোত্তমসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা ও লাল-সবুজের পতাকা উপহার দানকারী সৈনিক হত্যার মাধ্যমে। তিনি ক্ষমতা দখল করেই ভুট্টোর দাবি মোতাবেক প্রায় বিশবার সেনা অভ্যুত্থানের নামে অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা ও দেশপ্রেমিক   সৈনিক হত্যা করে যারা প্রায় সবাই বঙ্গবন্ধুর অনুসারী ছিলো। রক্তপিপাসু ঐ সেনানায়কের পরিকল্পিত এ হত্যাকাণ্ডগুলো মূলত ইচ্ছাকৃত ছিল।  এদেশকে মুক্তিযোদ্ধা শূন্য করে পাকিস্তানি তাবেদার রাষ্ট্র বানানোর মানসেই তিনি এসব করেছিলেন।

আমাদের বহু ত্যাগ-তিতিক্ষা, তাজা প্রাণ ও ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত প্রিয় ও পবিত্র এ মাটি পাকিস্তানি হায়েনা মুক্ত হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৬ ই ডিসেম্বর। ৯৩ হাজার সৈন্যকে নিয়ে বাধ্য হয়েই জীবন নিয়ে ফিরতে পেরেছিল রক্ত পিপাসুরা। স্বাধীন ও সার্বভৌম এ শিশু রাষ্ট্রটিকে বিশ্বের বহু দেশ স্বাধীন স্বীকৃতি দিলেও পাকিস্তান সরকার স্বীকৃতি দান না করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দিতে অনুরোধ করে ও নিজেরা রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বাধীন বাংলাদেশকে পূর্বপাকিস্তান নামে অভিহিত করে। এদেশের স্বাধীনতা বিরোধী চক্রকে যারা মুক্তিযোদ্ধার নাম করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি এজেন্ট হিসেবে কাজ করেছে এবং যাতে এদেশটি স্বাধীন হতে না পারে ।

এই চক্র অবশ্য মুক্তিযুদ্ধ চলাকালেও মুজিবনগর সরকারে অবস্থান করে স্বাধীনতা বিরোধী কার্যক্রম চালিয়েছে। এরা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পাকিস্তানিদের অনুচর হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। স্বাধীনতার পর এই মোস্তাক-জিয়া চক্রই মুজিব সরকারকে উত্খাত করে স্বাধীন বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তানের অঙ্গ রাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠায় অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়। তারা সরকারের সামরিক বেসামরিক বিভাগে মুজিব সরকার বিরোধী ব্যক্তিদের সংঘবদ্ধ করে। বিশেষ করে  জিয়া পাকিস্তান ফেরত সেনাবাহিনীর লোকজনদের নিয়ে গোপনে গোপনে সরকার বিরোধী  শিবির তৈরি করতে থাকে। এই শিবিরের লোকজনরাই ১৯৭৫ সালের  ১৫ই আগষ্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বেঈমান বিশ্বাসঘাতক খন্দকার মোস্তাককে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ করে। মোস্তাক রাষ্ট্রপতি হলেও দেশ পরিচালনার মূল দায়িত্ব পালন করে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী মেজররা। মোস্তাকের নেতৃত্বে তারা মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনাকে ধূলিসাত্ করে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরে যেতে থাকে। মোস্তাক-জিয়া চক্রের এই দুষ্কর্মের বিরুদ্ধে খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীরা সংগঠিত হয়। তারা মুজিব হত্যার প্রতিবাদ এবং সেনাবাহিনীর চেইন অব কমান্ড ফিরিয়ে আনার জন্য অগ্রসর হয়।

এ লক্ষ্যে তারা ১৯৭৫ সালে ৩রা নভেম্বর সামরিক অভ্যুত্থান ঘটান। তারা জিয়াকে গৃহবন্দী করে এবং খন্দকার মোস্তাককে রাষ্ট্রপতি থেকে বিতাড়িত করেন। এসময় সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরোত্তম আর রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম। বিনা রক্তপাতে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে দেশের আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়।

মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফের ঐতিহাসিক পরিবর্তনকে মেনে নিতে পারেনি মোস্তাক-জিয়া চক্র। তারা গোপনে গোপনে খালেদ মোশাররফের বিরুদ্ধে সংগঠিত হতে থাকে । তারা জিয়াকে বাসা থেকে  মুক্ত করে নিয়ে আসে। উল্লেখ্য, জিয়াকে  ৩ নভেম্বর  গৃহবন্দী করা হয়। বন্দী করে বাসার সমস্ত ফোনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিলেও একটি লাইন বিচ্ছিন্ন করেনি। উক্ত ফোনে জিয়া কর্ণেল তাহেরসহ অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। জিয়ার অনুরোধ পেয়ে তাহের তাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেন তার বিপ্লবী সংস্থা নিয়ে। মোস্তাক-জিয়া ও তাহের চক্র ৬ই নভেম্বর মধ্যরাতে ক্যান্টনমেন্টে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করে। এসময় তারা স্লোগান দেয়—সিপাহী সিপাহী ভাই ভাই, সুবেদারের উপর অফিসার নাই, সিপাহী সিপাহী ভাই ভাই, অফিসারের কল্লা চাই,বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, মেজর জিয়া জিন্দাবাদ,খন্দকার মোস্তাক জিন্দাবাদ, নারায়ে  তকবির আল্লাহু আকবার। তারা স্লোগান এবং গুলি করতে করতে  বঙ্গভবনের দিকে অগ্রসর হয়।

খারাপ অবস্থা অবলোকন করে মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ হায়দার ও হুদাকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গভবন থেকে সরে শেরেবাংলা নগরে দশম বেঙ্গলে আসার চেষ্টা করেন। আসার পথে তার গাড়ি নষ্ট হয়। তখন তিনি ফোন করে দশম বেঙ্গলে কমান্ডিং অফিসার লেঃ কর্ণেল নওয়াজেশ এর কাছ থেকে নিরাপত্তার আশ্বাস পান। নিরাপত্তার আশ্বাস পেয়ে অনেক কষ্ট করে দশম বেঙ্গলে পৌঁছেন মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ। সেখানে তিনি বিশ্রাম নিতে থাকেন। সেখানে গিয়ে উপস্থিত হয় একদল উচ্ছৃঙ্খল সৈনিক।

তাদের সঙ্গে যোগ দেয় দশম বেঙ্গলের কিছু সৈনিক। এই উচ্ছৃঙ্খল সৈনিকদের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন মেজর আসাদ ও জলিল। মেজর আসাদ ও জলিলের সঙ্গে  জিয়া কথা বলেন। জিয়ার সঙ্গে কথা বলার পরই আসাদ ও জলিল খালেদ মোশাররফকে এবং হায়দার ও হুদাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ঘাতকরা  খালেদ মোশাররফকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি। অনেক ঘাতকেরা আরো অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধা সেনাকর্মকর্তার ওপর আক্রমণ চালায় এবং বহু সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসীদের কাছে দিনটি একটি কলংকিত দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে বা থাকবে। যেহেতু জিয়া হত্যার মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে এবং ক্ষমতায় বসেও মুক্তিযোদ্ধাদের নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা চালায়। সেহেতু দিনটিকে সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস হিসেবে জাতির সামনে তুলে ধরা উচিত

Facebook Comments


Leave a Reply

শিরোনাম
নওগাঁয় ট্রাকের ধাক্কায় ২ ভাইয়ের মর্মান্তিকভাবে মৃত্যু মিরপুরে পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত ।।পুলিশ ফাঁড়ি লকডাউন রামপালে ময়না আদর্শ কিন্ডার গার্টেন আম্পানে বিধ্বস্ত সরকারি সাহায্যের আবেদন নোয়াখালীতে পুকুরের পাশে মায়ের ঝুলন্ত লাশ, পানিতে শিশুর লাশ তারাইলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট করোনা পজেটিভ ১৫ জুনের আগে খুলছে না রাবি ঝিনাইদহে প্রতারণার অভিযোগে এক যুবকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি কুষ্টিয়ার মিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগিদের দেয়া হচ্ছেনা বেডসীড ঝিনাইদহের শৈলকুপায় করোনায় কর্মহীন বৃদ্ধকে অটো ভ্যান উপহার কিশোরগঞ্জের কৃতি সন্তান চালক বিহীন হেলিকপ্টারের আবিস্কারক হুমায়ুন কবির আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বাড়ীঘর ভাংচুর ও আমেরিকান নাগরিক সহ-৯ জন জখম কোটচাঁদপুরে পানিতে বন্দি ৬টি অসহায়  পরিবার, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা স্যার নিজেই ড্রাইভার! কুষ্টিয়ায় নি‌খোঁজের ১৮ ঘন্টা পর নদী‌তে ভে‌সে উঠ‌লো ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত‌দেহ হরিণাকুণ্ডুর পল্লিতে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা জাতীয় পরামর্শক কমিটি সতর্ক করল করোনা নিয়ে ! বৈশ্বিক চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশ সক্ষম : পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিয়াঙ্কার ‘বেওয়াচ’ ভালো লাগেনি পামেলার আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত পশ্চিমবঙ্গের পাশে শাহরুখ শর্তসাপেক্ষে সবকিছু খুলছে নওগাঁয় চেম্বারের উদ্যোগে মাসব্যাপী ডেঙ্গু ও মসক নিধন শুরু মোংলায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘর বরাদ্দ, বিতরণ করা হয়েছে জিআর চাল প্রবাসী জাহিদুল ইসলাম বাহারে উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ নান্দাইলের মিতু গাইবান্ধায় শ্বশুরালয়ে হত্যার অভিযোগ কুষ্টিয়ায় ৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত 

© All rights reserved © 2017 onnodristy.com

Theme Download From ThemesBazar.Com