ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

<!– G&R_728x90 –>
<script id=”GNR62876″>
(function (i,g,b,d,c) {
i[g]=i[g]||function(){(i[g].q=i[g].q||[]).push(arguments)};
var s=d.createElement(b);s.async=true;s.src=c;
var x=d.getElementsByTagName(b)[0];
x.parentNode.insertBefore(s, x);
})(window,’gandrad’,’script’,document,’//content.green-red.com/lib/display.js’);
gandrad({siteid:22071,slot:62876});
</script>
<!– End of G&R_728x90 –>

শিক্ষায় বৈষম্য : ক্ষোভ প্রশমনে করণীয়

মোঃ সাইদুল হাসান সেলিম।।

বৈশ্বিক মহামারী করোনার প্রাদূর্ভাবে বিস্মিত গোটা বিশ্বের মানুষ। জীবন জীবিকা নির্বাহে অর্থনৈতিক বিপর্যয় সর্বত্রই। প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে আমাদের সবার।

তাঁরই ধারাবাহিকতায় ১১ জুন ২০২০ সংসদে প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট ২০২০/২০২১ ঘোষণা করা হয়েছে। সল্পপরিসরে দেশের বিদ্যমান বিশৃঙ্খল শিক্ষাব্যবস্থার বিষয়ে অবতারণা করা হলো। আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা এবং মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাখাতে ৬৬ হাজার ৪শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেট পর্যালোচনায় দেখা যায়, শিক্ষা খাতের বরাদ্দ ১১.৬৯ শতাংশ। যা চলতি অর্থবছরের বাজেটে ছিল ১১.৬৮ শতাংশ। আমরা আশাবাদী ছিলাম মুজিব বর্ষে সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী শিক্ষার মানোন্নয়নে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের লক্ষ্যে শিক্ষাখাতে নূন্যতম ১৫ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া হবে।

প্রস্তাবিত বাজেট বরাদ্দে শিক্ষক এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা মোটেও সন্তুষ্ট হতে পারেননি। বৈশ্বিক মহামারী করোনায় বিপর্যস্ত শিক্ষা খাতের বরাদ্দ গতানুগতিক, অসচ্ছ ও অপর্যাপ্ত। এতো সামান্য বরাদ্দ দিয়ে শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়ন ও ধারাবাহিকতা রক্ষা করা কঠিনতর হবে বলে মনে করছি।

শিক্ষা মানুষের জীবন গঠনের একটি নিরন্তর প্রক্রিয়া। মানুষের দর্শন, অনুভব ও উপলব্ধির সমন্বিত রূপ। মানুষের সুপ্ত প্রতিভাকে বিকশিত করার অনন্য মাধ্যম শিক্ষা। জ্ঞানের অসীম তৃষ্ণা নিবৃত্তির প্রচেষ্টা থেকেই শিক্ষার অগ্রযাত্রা। অবকাঠামো নয়, কালের পরিক্রমায় শিক্ষা গুরুকে কেন্দ্র করেই শিক্ষার আজকের প্রাতিষ্ঠানিক রূপ। শিক্ষক বিহীন শিক্ষায়তন কল্পনার অতীত-অলীক কল্প। সেহেতু শিক্ষার ধারণায় শিক্ষকরাই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বিগত দশ বছরে দেশের শিক্ষাক্ষেত্রে অবকাঠামো ও উপকরণগত ব্যপক উন্নয়ন অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ, বিনামূল্যে বই, বৃত্তি, উপবৃত্তি সহ অনেক উন্নয়ন হয়েছে। পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস, নকল প্রবনতা বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে।  বর্তমানে আমাদের আধুনিক বিশ্বের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে হলে, শিক্ষার গুণগত মান পরিবর্তনে গুরুত্ব দেওয়া জরুরি। বিশ্ব মানের শিক্ষার জন্য চাই মানসম্মত মেধাবী শিক্ষক। মানসম্মত শিক্ষক পাবার জন্য প্রয়োজন শিক্ষকদের আর্থিক সচ্ছলতা ও পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা।

শিক্ষা সরকারিকরণ ব্যতীত পৃথিবীর কোন দেশেই বেসরকারি শিক্ষা সফল হয়নি। চীন কিম্বা আমেরিকাতেও না। সেখানেও ভাল স্কুল কলেজ বলতে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে বোঝায়। চীন সরকারি শিক্ষার ওপর ভিত্তি করেই শক্তিশালী দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী করেছে। বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন স্তরে। অদূরেই নিম্নমানের শিক্ষিত জনগোষ্ঠী জাতির জন্য বোঝা বাঁ অভিশাপ হয়ে দাঁড়াবে। এক্ষেত্রে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের মাধ্যমেই গুণগত মানের শিক্ষার দ্বার প্রশস্ত হতে পারে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ২০১০ সালে অধ্যাপক কবীর চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছে। অতীব দুঃখের বিষয়, দীর্ঘ ১০ বছরে জাতীয় শিক্ষানীতির ২৫ ভাগ বাস্তবায়িত হয়নি। শিক্ষানীতিতে বিচ্ছিন্ন শিক্ষা একীভূতকরণের উপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। শিক্ষকদের সম্মান মর্যাদা রক্ষায় সতন্ত্র বেতন স্কেল নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষার মানোন্নয়নের উপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

অথচ অদ্যাবধী শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে একটি শিক্ষা আইনের খসড়া পর্যন্ত চূড়ান্ত করতে পারেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অপরদিকে তিন স্তরের শিক্ষাধারার কথা বলা থাকলেও পূর্বের নিয়মেই বিভিন্ন ধারার শিক্ষাব্যবস্থা পরিচালিত হচ্ছে। আমলাতান্ত্রিক বিদ্বেষী মনোভাবের কারণেই শিক্ষাব্যবস্থায় চলছে এক নৈরাজ্যকর বিশৃঙ্খল অব্যবস্থাপনা।

সরকারি বেসরকারি শিক্ষাব্যবস্থায় পাঠ্যক্রম পাঠ্যসুচী পরীক্ষাপদ্ধতি, কর্মঘন্টা বিধিবিধান একই হলেও বেতন-ভাতা সুযোগ সুবিধার ক্ষেত্রে সরকারি বেসরকারি শিক্ষকদের মধ্যে বিশাল বৈষম্য বিদ্যমান। অথচ দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার ৯৭% শিক্ষার দায়িত্ব পালন করছেন বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। বিভিন্ন বন্চনা বৈষম্যের কারণে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের মধ্যে ব্যপক ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিদ্যমান এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বন্চনা বৈষম্যের খন্ড চিত্র তুলে ধরা হলো।

১। সরকার বেতন স্কেলের শতভাগ অনুদান/বেতন-ভাতা নামে প্রদান করা হয়ে থাকে।

২। ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী থেকে প্রিন্সিপ্যাল পর্যন্ত নির্দিষ্ট একহাজার টাকা বাড়িভাড়া প্রদান করা হয়।

৩। নির্ধারিত পাঁচ শ’ টাকা চিকিৎসা ভাতা দেয়া হয়।

৪। বেতন স্কেলের ২৫ শতাংশ উৎসবভাতা প্রদান করা হয়।

৫। বেসরকারি শিক্ষকদের পদোন্নতির বিধান নেই। বৈষম্য সৃষ্টির লক্ষ্যেই যেন, ৮ বছরের অভিজ্ঞতার পরিবর্তে ১০ বছরের বিতর্কিত নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। কোন কারণ দর্শানো ব্যতিরেকে ৫ বছর ধরে টাইমস্কেল বন্ধ রাখা হয়েছে। সম্প্রতি উচ্চতর স্কেল প্রদানের পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এখানেও বিভিন্ন অজুহাতে শিক্ষকদের বঞ্চিত করার চেষ্টা অব্যাহত।

৬। শিক্ষকদের প্রবল আপত্তি সত্ত্বেও অবসর কল্যাণ ট্রাস্টে বাড়তি সুবিধা না দিয়ে বেতন থেকে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ সহ মোট ১০ শতাংশ কেটে নেয়া হচ্ছে।

৭। শিক্ষা নীতিমালায় বদলীর বিধান রাখা হলেও তা বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। একই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা শুরু এবং শেষ।

৮। দীর্ঘ ৯ বছর এমপিওভুক্তি বন্ধ রাখার পর চলতি বছরে ২৭৫০ টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছে। চলতি বাজেটে বরাদ্দকৃত ৪১৪ কোটি টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। অথচ ফেরত কৃত অর্থে আরও ২৫০০ প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা সম্ভব হতো।

৯। জেলা উপজেলায় একটি করে প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করে শিক্ষকদের মধ্যে নতুন করে বৈষম্য তৈরি করা হয়েছে। এতে প্রান্তিক অসচ্ছল জনগোষ্ঠী শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

১০। কলেজ শিক্ষকদের ৫:২ অনুপাত প্রথার প্রবর্তন করে

শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করা হয়েছে।

১১। পূর্বে সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বেতন স্কেল একই থাকলেও ২০১৫ থেকে সরকারি প্রধানদের একধাপ নিচে স্কেল নির্ধারণ করা হয়েছে।

১২। সর্বশেষ ২০১৫ পে-কমিশনে ৯ম ও ৮ম স্কেল এক হাজার টাকা ব্যবধানে নির্ধারণ করা হয়েছে। এতেও ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের মাঝে চরম হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

১৩। বেসরকারি শিক্ষকদের দুই বছরে ১০% বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হতে বঞ্চিত করে বৈষম্যের পরিধি বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এককথায় অবহেলা আর অযত্নে ব্যপক বৈষম্য সৃষ্টির মাধ্যমে শিক্ষাব্যবস্থা চলছে বিকলাঙ্গের ন্যায় খুড়িয়ে খুড়িয়ে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা যেন বৈষম্য সৃষ্টির কারিগরের দায়িত্ব পালন করছেন। অথচ বৈষম্যে আকন্ঠ নিমজ্জিত শিক্ষকরা ইচ্ছা করলেই অন্য কোন পেশাজীবী বাঁ রাজনৈতিক দলের মতো দাবিদাওয়া নিয়েও রাস্তায় নেমে যানবাহন ও জন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারেন না। একজন শিক্ষকের বেতন ভাতা সু্যোগ সুবিধা সরকারি পিয়নের চেয়ে কম, এটি রাষ্ট্রীয় লজ্জা! অবিলম্বে দেশের  ৯৭ শতাংশ শিক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত বেসরকারি শিক্ষকদের সঞ্চিত ক্ষোভ প্রশমন, বঞ্চনা ও বৈষম্য দূরীকরণ করতে হবে। শুধুমাত্র কালির আঁচড়ে ও অভুক্ত উদরে রেখে শিক্ষকদের সম্মান মর্যাদা দেয়া হয় না। শিক্ষার মানোন্নয়নে শিক্ষকদেরকে অবশ্যই আর্থিক সচ্ছলতা দিতে হবে। সদিচ্ছা থাকলে বিশ্ব মানের শিক্ষা নিশ্চিত করা এক যুগেই সম্ভব হতে পারতো।

পরিশেষে যথাযথ সম্মান ও বিনয়ের সাথে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট অনুরোধ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে  সাহসীকতার সাথে একযোগে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের ঘোষণা দিন। বিপন্ন শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নে ঐতিহাসিক অবদান স্বরুপ, ইতিহাসে চিরকাল স্বরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকবেন-ইনশাআল্লাহ।

 

লেখক

সভাপতি

বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম

Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email


Leave a Reply

শিরোনাম
ঝিনাইদহ র‌্যাবের কোম্পানী কমান্ডার মাসুদ আলমের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় ফুটবল খেলা নিয়ে বিরোধে কি‌শোর খুন মিরপুরে করোনায় আক্রান্ত রোগীর বাড়ি লকডাউন মাগুরায় শ্রীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এমপি শিখরের মায়ের স্মরণে দোয়া মাহফিল মহম্মদপুরের বাবুখালীতে জোরপূর্বক জমি দখল করে রাস্তা নির্মানের অভিযোগ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত ও কৃষিজ উৎপাদন অব্যাহত রাখতে কাজ করছে সেনাবাহিনী সিরাজগঞ্জে আজও নতুন করে ৩৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত লক্ষ্মীপুরে মটরসাইকেল কেড়ে নিল শুভ’র প্রাণ : ভাইকে পাঠানো হল পঙ্গু হাসপাতালে ছাত্রীদের মাঝে কিশোর বান্ধবী টয়লেট সামগ্রী বিতরণ নারী ইউপি সদস্য বিউটি ষড়যন্ত্র থেকে বাঁচতে প্রশাসনের সাহায্য চান নারী ইউপি সদস্য মায়ের নামে ১৭ বছর ধরে ডাবল ভাতা ইস্যুকারায় বহিষ্কারের সুপারিশ নওগাঁয় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ধান চাতাল ব্যবসায়ীর মৃত্যু, ১ জন গুরুতর আহত সরকারের গণবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে নওগাঁয় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ নওগাঁর শিব নদীর পানিতে প্লাবিত হয়েছে কয়েক লাখ হেক্টর জমির ফসল মাগুরার শ্রীপুরের গড়াই নদীর ভাঙ্গনে বাড়িঘর ফসলি জমি বিলীন, হুমকির মুখে শতাধিক পরিবার এ্যাডভোকেট রিয়াজুল ইসলাম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে সুস্থতা কামনা শ্রীপুরে নন – এমপিও শিক্ষক ও কর্মচারীদের মাঝে সরকারী বরাদ্দকৃত অর্থের চেক প্রদান বাগআঁচড়া ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে সাইকেল বিতরণ গোদাগাড়ীতে সিসিবিভিওর আয়োজনে মেধাবী ছাত্রীদের বৃত্তির চেক প্রদান রাজশাহী অঞ্চলে একদিনে  ২১৯ জনের  করোনা শনাক্ত  মারা গেছে ৫ জন নন-এমপিও শিক্ষকরা পেলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা উপহার নিয়ামতপুরে ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে জনপ্রতিনিধি ও সরকারী কর্মকর্তাগণের মতবিনিময় সভা কিশোরী ধর্ষনে অন্তঃসত্তা, জন্ম দিলেন কন্যা, সন্তান পাচ্ছেনা পিতৃ পরিচয় ঝিনাইদহে ডাকবাংলা কলেজের উদ্যোগে “বৃক্ষ রোপন” কর্মসূচি

© All rights reserved © 2017 onnodristy.com

Theme Download From ThemesBazar.Com