ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টে বর্ধিত চাঁদা কর্তন আইনের পরিপন্থী ও অমানবিক

মোঃ সাইদুল হাসান সেলিম।।

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারীদের কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হয় ১৯৯০ সালে। বাংলাদেশ গেজেট ফেব্রুয়ারি -১৯৯০ সালের ২৮নং আইনে বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের কল্যাণ ট্রাস্ট স্থাপন করা হয়।

কল্যাণ ট্রাস্টের ২৮ নং আইনের ১০ নং ক্রমিকের (১) বলা হয়েছে শিক্ষক কর্মচারীরা প্রবিধান দ্বারা নির্ধারিত হারে চাঁদা প্রদান করিবে অর্থ্যাৎ শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন স্কেলের ২ শতাংশ হারে চাঁদা নির্ধারিত হয়।

ধারা ৯। ট্রাস্টের তহবিল গঠন (৩) এর

(ক) উপধারা (২) এর অধীন সরকারের এককালীন প্রদেয় অর্থের সুদ বা মুনাফা।

(খ) সরকার কর্তৃক প্রদত্ত অনুদান।

(গ) শিক্ষক কর্মচারী কর্তৃক প্রদত্ত চাঁদা।

(ঘ) শিক্ষার্থীদের চাঁদা। (যা ২০০২ সালের সংশোধনী আইন দ্বারা রহিতকরণ করা হয়)
(ঙ) স্থানীয় সংগঠন সংস্থা কর্তৃক অনুদান।

(চ) ট্রাস্টের অন্যান্য উৎস থেকে আয়।

উল্লেখিত আইনানুযায়ী বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের কল্যাণ ট্রাস্ট হতে নিম্নরূপ আর্থিক সুবিধা প্রদান করা হবে।
৮ এর (১) চাঁদা প্রদানকারী কোন শিক্ষক কর্মচারী অবসর গ্রহণ করিলে তিনি যত বৎসর শিক্ষকতা করিয়াছেন তত মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ এককালীন প্রাপ্য হবেন। (পরবর্তীতে ২১ জুন- ২০০৬ সংশোধনীতে যত বছর কল্যাণ ট্রাস্টে চাঁদা কর্তন করিয়াছেন বাক্যটি যুক্ত করা হয়)
বাংলাদেশ গেজেট, প্রবিধানমালা ১ নভেম্বর ১৯৯৯ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, এই সুবিধা ১লা জুলাই ১৯৯০ তারিখ হতে নির্ধারণ করা হয়। অথচ শিক্ষক কর্মচারীদের এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত করার অভিপ্রায়ে উল্লিখিত বাক্যটি সংযুক্ত করা হয়েছে। (শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট সংশোধন আইন-২০০২ তে ১৯৯০ সালের ২৮ নং আইনের ১১ ধারা বিলুপ্ত করায় শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে চাঁদা আদায় রহিতকরণ করা হয়।)
১৯৯০ সালের ২৮নং আইন, ১৯৯৯ প্রবিধানমালা এবং ২০০২ সালের সংশোধন আইনের কোথাও শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত চাঁদা আদায় বাঁ কর্তনের আইনগত ভিত্তি নেই।

অবসর সুবিধা বোর্ড:

অনুরূপভাবে ১লা ডিসেম্বর ২০০২ সাল থেকে অবসর সুবিধা বোর্ড গঠনের ২৭নং আইন বলবৎ করা হয়। ২০০৫ সালের ১৭ জুলাই প্রবিধানমালা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হয় ৮ই জানুয়ারি ২০০৫ তারিখ। উক্ত আইনের ৮ নং ধারায় শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন স্কেলের ৪% চাঁদা নির্ধারণ করা হয়। বেসরকারি শিক্ষককর্মচারীদের অবসর সুবিধা বোর্ড হতে অবসর পরবর্তী এককালীন নিরবচ্ছিন্ন ২৫ বছর চাকরির পর ৭৫ মাসের সর্বশেষ স্কেলে সুবিধা প্রাপ্ত হবেন। ২০০২ সালের ২৭ নং আইনের কোথাও শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ২% কর্তন করা হবে বাঁ যাবে তার কোন উল্লেখ নেই।
অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টে ১৯৯০ সালের ২৮ নং আইন এবং ২০০২ সালের ২৭ নং আইন এবং ২০০৫ সালের প্রবিধানমালা অনুসারে অবসর সুবিধা বোর্ডও কল্যাণ ট্রাস্টে বর্ধিত সুবিধা না দিয়ে, শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ২% + ২% = ৪% চাঁদা কর্তন সম্পুর্ন বেআইনি ও অমানবিক।

অবিলম্বে অবসর সুবিধা বোর্ড এবং কল্যাণ ট্রাস্টে অতিরিক্ত ২%+২%= ৪% কর্তন বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি। কল্যাণট্রাস্ট গঠনকালীন শিক্ষক কর্মচারীদের বেতনথেকে চাঁদা আদায় পরবর্তী, ঘাটতি পূরণে সরকার ভর্তুকি বাঁ অনুদান সহায়তার স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে। অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের ঘাটতি পূরণে বিকল্প উপায় না খুঁজে শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত কর্তন অমানবিক ও বেআইনি। সরকার থেকে বার্ষিক অনুদান বাঁ ভর্তুকি না এনে শিক্ষক কর্মচারীদেরবেতন থেকে অতিরিক্ত কর্তনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থার ৯৭% শিক্ষার গুরুদায়িত্ব পালন করেন বেসরকারি শিক্ষকরা। দেশ আজকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে শামিল হয়েছে। অপ্রতিরোধ্য সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় দেশ মধ্যম আয়ের দেশে দিকে ধাবিত হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একান্ত সদিচ্ছায় জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছে। নতুন নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। শিক্ষিতের হার ৩০ শতাংশ থেকে বেড়ে ৭২ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। শতভাগ শিক্ষার্থীরা স্কুলে ভর্তি হচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য গুণগত মানের শিক্ষায় শতভাগ শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর ডিজিটাল ও সমৃদ্ধ দেশ হবে বাংলাদেশ।

এই সকল উন্নয়ন অগ্রগতির পিছনে শিক্ষক সমাজের ভূমিকা অপরিসীম। জাতীয় উন্নয়ন অগ্রগতিতেৎ ৯৭ শতাংশ বেসরকারি শিক্ষকদের অবদান অস্বীকার করার কোনও সুযোগ নেই।

এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের মাধ্যমে শিক্ষকদের বঞ্চনা বৈষম্য দূরীকরণ ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় পেনশন সুবিধা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের সাংবিধানিক দায়িত্ব।

পরিশেষে বলবো বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টে অতিরিক্ত ৪% কর্তনের ফলে শিক্ষকদের মাঝে যে ক্ষোভের সৃষ্টি করা হয়েছে তা প্রশমিত করতে অবিলম্বে অতিরিক্ত কর্তনের প্রজ্ঞাপন বাতিল বাঁ বর্ধিত সুবিধা প্রদানের জোর দাবি জানাচ্ছি। বিশ্বমানের আধুনিক ও গুনগত মানের শিক্ষা নিশ্চিত করতে হলে এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ-ই একমাত্র উপায়।

 

লেখক

সভাপতি
বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম।

Facebook Comments


শিরোনাম
রামগঞ্জে শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল মহেশপুরে বিজিবি’র নামে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে ইউপি মেম্বর আটক ঝিনাইদহে ৮ বছরের শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু!     ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই সাংবাদিক আহত ঝিনাইদহে ডেংঙ্গু আক্রান্তে এক যুবকের মৃত্যু বরিশালে নিয়োগ দেবে অপসোনিন ফার্মা ক্যারিয়ার গড়ুন ব্যুরো বাংলাদেশে সৎমেয়ের সঙ্গে ‘অশ্লীলতা’, জামিনের পর যা বললেন অভিনেতা শ্বশুরবাড়ি মাতালেন ক্লোজআপ ওয়ান তারকা রিংকু নিয়ামতপুরে খালেদা জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে বিএনপির আলোচনা ও দোয়া মাহফিল ঈদের ৬ষ্ঠ দিনেও দর্শনার্থীদের ভিড়ে মুখরিত সিরাজগঞ্জ তাড়াশের কন্দইল চলবিলের ব্রীজ  মানব সেবায় তরুণ সংঘের সভাপতি হলেন মিজান, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আজ জশনে জুলুছের প্রতিষ্ঠাতা হুজুর কেবলা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ (রহ.) ওরশ শরীফ লক্ষ্মীপুরে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু মেঘনা নদী ভাঙ্গন পরির্দশন করলেন; মেজর মান্নান “যে দিয়েছে দেশ, তাকে করেছি শেষ! মাদরাসার শোকসভায় বক্তারা “ঝিনেদার আঞ্চলিক ভাষা গ্রুপে”র দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির উদ্যোগে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  মাগুরায় বিয়ে করতে এসে ভূয়া সেনা কর্মকর্তা শ্রীঘরে রাঙ্গুনিয়ায় লোকালয়ে বন্য হাতির অনুপ্রবেশে আতঙ্কিত স্থানীয় জনগণ মাগুরা শ্রীপুরে বেপরোয়া রাসেল পরিবহন প্রান নিলো ১ জনের,আহত অপর জন   মাগুরা শ্রীপুরে ইয়াবাসহ ২ জন আটক লক্ষ্মীপুরে মেঘনার ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করলেন এমপি মান্নান বাগেরহাটে ঈদের ফিরতি টিকিটে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ আওয়ামীলীগের নেতা সেজে অন্যদলের তাঁবেদারি করলে কঠোর ব্যবস্থা। 
© All rights reserved © 2017 Onnodristy.Com
Theme Download From ThemesBazar.Com