১৫ অক্টোবর ২০১৮ || সোমবার || ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

যাকাত আদায়ের স্বরূপ

খন্দকার ফিরোজ আহম্মেদ

বালুকাময় একটা স্থানে এক লোক পিঠে বিশাল একটা বোঝা নিয়ে ঘুরছে। উদ্দেশ্য এই মালের বোঝা কাউকে দিয়ে নিজে ভারমুক্ত হবে। বোঝাটা যাকাতের মালের। এমন সময় দেখলো যে, ছেড়া পোশাক পরিহিত একজন লোক একটা গাছের ছায়ায় বসে আছে। প্রথম লোকটা ভাবলো, যাকাতের মাল প্রদান করার মতো লোক তাহলে পাওয়া গেলো। আল্লাহ, বাঁচালে আমায়।
সে গাছের নিচে বসা লোকটার কাছে গিয়ে সালাম দিয়ে বললো, এই যে আপনার প্রাপ্য মাল, এটা গ্রহন করে আল্লাহর ওয়াস্তে আমাকে উদ্ধার করুন।

দ্বিতীয় লোকটা একথা শুনে একটু দূরে ইশারা করে দেখিয়ে বললো, আমি যাকাতের মালে বোঝা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে ঘুরে বেড়াচ্ছি, কিন্তু প্রদানের মতো লোক পাচ্ছিনে। কেউই নিতে চাচ্ছে না।

এটা ইসলামের সোনালি যুগের একটা গল্প। অভাবের তাড়নায় সাহাবীরা রা:গণ পেটে পাথর বেঁধেছেন, গাছের পাতা খেয়েছেন। অথচ সেই সমাজেই যখন যাকাতের বিধান ফরজ করা হয়, তখন যাকাতের মাল দেয়ার মতো লোক পাওয়া যেতো না।

নামাজ রোজার মতো যাকাতও মুসলমানদের উপর ফরজ, যাদর নেসাব পরিমান সম্পদ আছে। যাকাত শব্দের অর্থ পবিত্রতা ও বৃদ্ধি পাওয়া। অর্থাৎ যাকাত আদায় করলে সম্পদ পবিত্র হয় এবং বৃদ্ধি পায়। “আর তাদের (ধনীদের) সম্পদে দরিদ্র ও বঞ্চিতদের অধিকার রয়েছে।” সুরা আল যাযিরাত, আয়াত ১৯। “তোমরা সালাত (নামাজ) কায়েম করো এবং যাকাত দাও”। সুরা মুযাম্মিল, আয়াত ২০। যাকাত আদায় করা মহান আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালার নির্দেশ, এটা পালন করতে মুসলমান বাধ্য। সাড়ে সাত ভরি সোনা বা সমতুল্য সম্পদ থাকলেই যাকাত প্রদান বাধ্যতামূলক। এই নিসাব পরিমান সম্পদের আড়াইভাগ সম্পদ যাকাত দিতে হবে।

যাকাত প্রদানের খাত সমুহ হলো-১.ফকির বা অভাবী ২. মিসকিন বা সহায় সম্বলহীন ৩.যাকাত আদায়ের জন্য নিয়োজিত ব্যাক্তি ৪. ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে এমন কোন ব্যাক্তিকে দেয়া ৫. দাসমুক্ত করা ৬. আল্লাহর পথে সংগ্রামকারী ব্যাক্তি এবং ৮.অসহায় মুসাফির। এগুলো আল্লাহ তায়ালা নির্ধারিত খাত।

আমাদের দেশের অনেকেই যাকাত দিয়ে থাকেন। প্রশ্ন হলো- যে পন্থায় যাকাত আমরা দিচ্ছি, তা কি আসলেই সঠিক পন্থা? কোরআন হাদিসের কোথাও লেখা নেই যে, শুধু কম দামের কিছু শাড়ি আর লুঙ্গি দিয়েই যাকাত আদায় করতে হবে। অনেকে ঘোষণা দিয়ে যাকাতের মাল দেন। অভাবী লোকেরা ভোর থেকে ভীড় করে লাথিগুতো খেয়ে কেউ পায় একটা শাড়ি বা লুঙ্গি, কেউ পায় হতাশা। বিরাট ঘোষণা দিয়ে ছোট্ট প্রদান, পর্বতের মুশিক প্রসবের মতো। ধরা যাক সারা মাস চেষ্টা করে একটা অভাবী লোক পাঁচটা শাড়ি পেলো; কিন্তু তার তো শুধু শাড়িতেই চলবে না, শাড়ির সাথে আরো অনেক জিনিস লাগে। যাকাত দাতা সর্বনিম্ন সাড়ে তিনশ টাকার শাড়ি দিয়েছিলো, আর যে পেলো সে তার চেয়ে কম দামে সেটা বেঁচে দিলো। বাধ্য হলো বেঁচে দিতে। তাহলে কী দাঁড়ালো? গ্রহিতার পাওনা ছিলো সাড়ে তিনশ টাকাই; কিন্তু টাকার বদলে শাড়ি দেয়াতে সে আসলে পেলো আড়াইশ টাকা। ক্ষতিটা কিন্তু গ্রহিতারই হলো। শাড়ির লুঙ্গির বদলে নগদ অর্থ দিলে এই সমস্যা থাকে না।
যাকাত হলো সরাসরি বান্দার অধিকার। যাকাত প্রদানের মাধ্যমে ধনী দরিদ্রের বৈষম্য দুর হয়। “যাকাত ইসলামের (ধনী দরিদ্রের মধ্যে) সেতুবন্ধন” মুসলিম শরীফের হাদিস। যাকাত এমন ভাবে আদায় করা উচিত যাতে ধনী গরীবের মাঝে সৌহার্দতা সৃষ্টি হয়। একটা বিষয় ভাবা প্রয়োজন যে, যাকাতের মাল কেউ নিতে বাধ্য নয়; বরং যাকাত প্রদানের জন্য আপনি বাধ্য। অতএব উপযুক্ত ব্যাক্তি খুঁজে তার বাড়িতে আপনাকে যাকাতের মাল পৌঁছে দিতে হবে। এটা আপনার দায়িত্ব। না দিলে অভাবী হয়তো কষ্টে থাকবে, কিন্তু প্রদান না করলে বেশি ক্ষতি হবে আপনার।

Facebook Comments


© All rights reserved © 2017 Onnodristy.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com