ব্রেকিং নিউজ
সংবাদকর্মী আবশ্যক। আগ্রহীগণ সিভি, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপিসহ আবেদন করুন - onnodristynews@gmail.com/ news@onnodristy.com. মুঠোফোন : ০১৯১১২২০৪৪০/ ০১৭১০২২০৪৪০।

বাংলাদেশে শিক্ষা একটি আকর্ষণীয় লাভজনক পণ্য

মোঃ সাইদুল হাসান সেলিম।।

যে কোনো জাতির উন্নয়ন অগ্রগতির মূলমন্ত্র হলো শিক্ষা। শিক্ষা বিষয়টি একটি সার্বজনীন, ব্যাপক ও বিস্তৃত প্রসঙ্গ। সাধারনত শিক্ষা বলতে বোঝায় শিক্ষার্থীর      মানসিকতার উৎকর্ষ সাধন, কাংখিত বাঞ্ছনীয় আচরণের পরিবর্তনের মাধ্যমে সমাজে সাফল্য জনক সহাবস্থান সহ অবদান রাখা। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ও সম্পদের সুষম ব্যবহারের উদ্দেশ্যে, শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার। আমাদের উন্নয়ন অগ্রগতির প্রধান অন্তরায়, উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত শিক্ষার নিম্নমান, অব‍্যবস্থাপনা এবং সকল পর্যায়ের দুর্নীতিগ্রস্ত শিক্ষাব্যবস্থা।

শিক্ষা যে কোন জাতির উন্নয়ন অগ্রগতির গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। শিক্ষা মানুষের মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত করে, মানুষের বিবেক বুদ্ধিকে প্রাজ্ঞতা দান করে। দ্রুত পরিবর্তনশীল সামাজিক পরিবেশে শিক্ষার্থীর কাংখিত ও বাঞ্ছনীয় আচরণের পরিবর্তনের মাধ্যমে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার নাম শিক্ষা। বর্তমানে বাংলাদেশে শিক্ষাকে পণ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়। পণ্যের সংজ্ঞায় বলা হয়, পণ্য হচ্ছে তাই, যা মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় জীবন পরিচালনার চাহিদা মেটায়। আদিকাল থেকেই মানুষ পৃথিবীতে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা গভীরভাবে অনুভব করে, সৃষ্টিশীল জ্ঞানীগুণী জনের দ্বারস্থ হয়েছেন। তখন শিক্ষা বাঁ জ্ঞান আদান-প্রদান করা হয়েছে, শুধুমাত্র গুরু শিষ্যদের ভক্তি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায়।

বর্তমানে দেশের শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে অর্থের যোগসূত্র মুখ্য এবং প্রকট হয়ে উঠছে। রাষ্ট্র শিক্ষার নিয়ন্ত্রণ ও দায়িত্ব বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছেড়ে দিয়ে দায়িত্ব মুক্ত হতে চাচ্ছে। ফলশ্রুতিতে একশ্রেণীর অসাধু মানুষ শিক্ষাকে পণ্যে পরিণত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এই উক্তি যথার্থ যে, দেশের ৯৭ শতাংশ শিক্ষার দায়িত্ব ও নিয়ন্ত্রণ বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছেড়ে দিয়ে শিক্ষাকে পণ্যে পরিণত করার ষোলকলা পূর্ণ করেছে সরকারগুলোই। বিশ্বের উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর শিক্ষাব্যবস্থা অবৈতনিক। মানুষের শিক্ষার মৌলিক অধিকার নিশ্চিতকরণে, রাষ্ট্র শিক্ষার সকল ব্যয় বহন করে থাকে। কিন্তু আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থার প্রেক্ষাপট সম্পুর্ন ভিন্ন। ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে ও রীতিনীতিতে প্রধান লক্ষ্যই হলো মুনাফা অর্জন। এখন আর বলতে দ্বিধা নেই, বেসরকারি শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষা অবশ্যই একটি  আকর্ষণীয় লাভজনক পণ্য। বিশ্বায়নের যুগে মানুষ যেমনটি নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস বা প্রযুক্তি ক্রয় করে, তেমনি শিক্ষাও একটি ক্রয়যোগ্য পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। শিক্ষা এখন কেউ ফ্রিতে দিচ্ছে না, ক্রয় করতে হচ্ছে। অথচ রাষ্ট্রকেই বিনামূল্যে মানুষের শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করার দায়িত্ব ছিল।

ইদানিং আমাদের শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নের বিষয়ে অনেক যুক্তিতর্ক আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে। তবে শিক্ষারও তো মানবিক মূল্যাবোধ থাকতে হবে। আমরা যে যাই শিখি না কেন, সেখানে যেন মানবিক মূল্যবোধ নৈতিকতা শিষ্টাচারকে বাদ দেয়া না হয়, এ প্রত্যাশা সকলের। বর্তমানে শিক্ষা পণ্যের বাজারে প্রশ্নপত্র ফাঁস একটি দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছে। আমাদের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষালাভের উপযুক্ত পরিবেশ, সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত না করে গুণগত মানের শিক্ষার প্রত্যাশা অলীক কল্পনা। দেশের শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে অভিন্ন শিক্ষাব্যবস্থা চালু করতে হবে। শিক্ষা আদান-প্রদান একটি জটিল প্রক্রিয়া। যেখানে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের নিরবচ্ছিন্ন উদ্বেগ উৎকণ্ঠা মুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা প্রয়োজন। শিক্ষকদের বঞ্চনা বৈষম্য এবং শিক্ষার্থীদের শিক্ষার ব্যয়বহুল চাপের কারণে শিক্ষা বহুলাংশে প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হচ্ছে।

বিজ্ঞান মুখী, প্রযুক্তি নির্ভর, মানবিক ও নৈতিক শিক্ষা ছাড়া, আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে পারছে না আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা। অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতার অজুহাতে আমাদের সম্ভাবনাময় শিক্ষাব্যবস্থার দৈন্যতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রচলিত পশ্চাৎপদ ধ্যান ধারণা আঁকড়ে থাকলে, আমাদের বিশাল সংখ্যক সম্ভাবনাময় আগামী প্রজন্ম জাতীয় উন্নয়ন অগ্রগতির সহায়ক না হয়ে, অন্তরায় হাতে বাধ্য।

ভাবতেই অবাক লাগে যে, আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় ১৯৬১ সালের একটি অর্ডিন্যান্স, ১৯৭২ সংবিধানে সংক্ষিপ্ত বর্ণনা এবং ২০১০ সালের জাতীয় শিক্ষানীতি ব্যতীত শিক্ষাব্যবস্থার কোন স্বীকৃত আইনি কাঠামো নেই। শুধুমাত্র সময়ে সময়ে কিছু সুয়োমোটো বাঁ প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে জোড়াতালি দিয়ে চলছে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা।
শিক্ষায় পৃথিবীর সবচেয়ে কম বিনিয়োগকারী দেশের নাম বাংলাদেশ। নৈতিকতা বিবর্জিত কিছু সংখ্যক স্বার্থান্বেষী মহলের উদাসীনতা এবং আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিক্ষায় অন-গ্রসরতার মূল কারণ।
করণীয় কি?

** অনতিবিলম্বে আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর যুগোপযোগী সম্পন্ন শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নে মনোনিবেশ করতে হবে।

** জাতীয় শিক্ষানীতির বাস্তবায়ন ও শিক্ষা আইন প্রণয়ন করে অনুমোদন নিতে হবে।

** অভিন্ন শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনে একযোগে সকল এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করতে হবে।
** শিক্ষার দায়িত্ব ও নিয়ন্ত্রণ রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে।

** শিক্ষায় সকল প্রকার দূর্নীতি অনিয়ম অব্যবস্থাপনা দূর করে গুণগত মানের শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।
** শিক্ষায় গুরুদায়িত্ব পালনকারী শিক্ষকদের যথাযথ সম্মান মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় সতন্ত্র বেতন-ভাতা এবং সুযোগ সুবিধা দিতে হবে।

** শিক্ষকদের ধারাবাহিক বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য পূরণে সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে।

** শিক্ষকদের যথার্থ সম্মান মর্যাদা ও আকর্ষণীয় বেতন-ভাতা এবং সুযোগ সুবিধা প্রদান করে, শিক্ষকতা পেশাকে আকর্ষণীয় করে মেধাবীদের শিক্ষকতায় আকৃষ্ট করতে হবে।

শিক্ষার মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদানকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছেড়ে দিয়ে, শিক্ষার মানোন্নয়ন অসম্ভব, সেকেলে এ ভ্রান্ত ধারণার দ্রুত পরিবর্তন জরুরি। আমাদের শিক্ষার সংখ্যাগত বৃদ্ধি হলেও গুণগত মানের পরিবর্তন প্রয়োজন। বাংলাদেশ সরকার শিক্ষাকে বেসরকারিকরণে উৎসাহিত করলেও, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো নির্মাণ, মেরামত, উন্নয়ন এবং শিক্ষকদের স্কেলের শতভাগ বেতন-ভাতা প্রদান করে থাকে, আংশিক ভাতা প্রতিষ্ঠান বহন করে থাকে। এমতাবস্থায় এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের মাধ্যমে শিক্ষার দায়িত্ব ও নিয়ন্ত্রণ সরকারের অধীনে রাখা সহজ এবং যৌক্তিক। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয় রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা নিয়ে অবশিষ্ট যৎসামান্যই বিনিয়োগ করে, জাতীয়করণ করা সহজসাধ্য। এতে শিক্ষার একক নিয়ন্ত্রণ রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় থাকবে, শিক্ষার মানোন্নয়ন সম্ভব হবে বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

লেখক

সভাপতি
বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি ফোরাম
বাংলাদেশ।

Facebook Comments


শিরোনাম
হাতের তালু অতিরিক্ত ঘামে? প্রতিকার জানুন তীব্র দাবদাহে ভারতে৭০ জনের মৃত্যু! ”চলতি সপ্তাহেই খালেদার জিয়ার জামিন” বিদ্যালয়ে দেহ ব্যবসা, অজ্ঞান প্রধান শিক্ষক র‌্যাব পরিচয়ে বিএনপি নেতা হাসান মামুনকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ, নিঃশর্তে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি ঝিনাইদহে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ জন নিহত ”আমি সংসদে দাঁড়ালেই ৩০০ এমপি উত্তেজিত হন” ”অবৈধ সংসদে কেন এসেছেন?” আলোচিত সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন অবশেষে গ্রেফতার শক্তিশালী সশস্ত্রবাহিনী গড়ে তোলার জন্য আর্ম ফোর্সেস গোল-২০৩০ প্রণয়ন: প্রধানমন্ত্রী জয়ের জন্য পাকিস্তানের দরকার ৩৩৭ রান খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ফের কর্মসূচি দেবে বিএনপি ঝিনাইদহে কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী দলের যুগ্ম আহ্বায়ককে ফুলেল শুভেচ্ছা বীরগঞ্জের জোড়া খুনের প্রধান আসামি তারিকুল ইসলাম (২৭) হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকুসহ আটক মৌচাক কালিয়াকৈর সড়ক দূর্ঘটনা আহত-২ নওগাঁয় পুলিশ বেষ্টনীর মধ্যেই দলীয় কার্যালয়ের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেছে যুবদল লক্ষ্মীপুরের মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা ও সংবর্ধনা নওগাঁয় হিরোইন সহ এক ব্যাক্তিকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ নিয়ামতপুরে ডিবির মাদকবিরোধী অভিযান, হেরোইন ইয়াবাসহ ৩জন আটক ফুটবল খেলোয়াড় হতে না পেরেই হলেন নাট্যকার জিএমপি কাশিমপুর থানায় ইয়াবা সহ গ্রেফতার-০১ নওগাঁয় জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁয় দেশি ফলের উৎসব লক্ষ্মীপুরে  শিশুযাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা! আটক-১ শ্রীপুরে মোবাইল চুরির অপবাদে শিশু নির্যাতনকারী আনোয়ারসহ আটক-২
© All rights reserved © 2017 Onnodristy.Com
Theme Download From ThemesBazar.Com